স্থগিতাদেশের আদেশ লঙ্ঘন: ছত্তোগ্রামের তৃতীয় যুগ্ম জেলা জজ সরকার কবির উদ্দিনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট

0
17



উচ্চ আদালত গতকাল চট্টগ্রামের তৃতীয় যুগ্ম জেলা জজ সরকার কবির উদ্দিনকে তলব করেছে, তাকে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ উপেক্ষা এবং ভূমি সংক্রান্ত মামলার বিচার কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য ৩১ শে মার্চ তাকে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মোঃ খায়রুল আলমের এইচসি বেঞ্চও বিচারক কবির উদ্দিনকে তার স্থগিতাদেশের লঙ্ঘনের কারণে কেন তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার কার্যক্রম শুরু করা হবে না তা চার সপ্তাহের মধ্যে ব্যাখ্যা চেয়ে রুল জারি করেছেন।

একজন বেলাল হোসেন ও কয়েক জনকে দায়ের করা বিচারক কবির উদ্দিনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই এইচ সি বেঞ্চ সমন আদেশ ও রায় জারি করেছে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায় ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন, চাটোগ্রামের হাটহাজারী এলাকা থেকে মহাফুজুর রহমানসহ চারজন ব্যক্তি পাঁচলাইশ এলাকার এক টুকরো জমি সংক্রান্ত একটি ঘোষণাপত্র মামলা করেছিলেন। বিচারক সরকার কবির উদ্দিনের আদালতে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে।

পাঁচলাইশ এলাকার বেলাল হোসেন ও অন্যরা একই জমির বিষয়ে অন্য একটি মামলা দায়ের করেছিলেন, যা বিচারক কবির উদ্দিনের আদালতেও বিচারাধীন রয়েছে এবং পরে মহাফুজুরের দায়েরকৃত মামলায় দলীয় হওয়ার জন্য একই আদালতে আবেদন করা হয়েছিল। রহমানসহ আরও তিনজন। বিচারক 29 মে, 2019 এ আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।

এরপরে বেলাল ও অন্যরা প্রত্যাখ্যান আদেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এইচসির কাছে একটি রিভিশন পিটিশন দায়ের করেছিলেন, এরপরে হাইকোর্ট মাহফুজুর রহমান এবং আরও তিনজন দায়ের করা ঘোষণাপত্রের মামলার বিচারকাজ স্থগিত করেন।

হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের অনুলিপি বিচারক কবির উদ্দিনের আদালতে জমা দেওয়া হয়েছিল। তবে, তিনি হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের লঙ্ঘন করে ঘোষণাপত্রের মামলার বিচার কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছিলেন বলে জানিয়েছেন ডিএজি তুষার কান্তি।

এরপরে বেলাল হোসেনসহ অন্যরা হাইকোর্টের কাছে বিচারক কবির উদ্দিনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন করেন।

গতকাল আদালত অবমাননার আবেদনের শুনানি চলাকালীন আইনজীবী আনসারুল হক বেলাল হোসেনসহ অন্যদের পক্ষে উপস্থিত হন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here