যাত্রীদের জন্য জীর্ণ রাস্তা দুঃখ

0
42



নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার দোয়ারিয়াকোনা-চাঁদপুর সড়কের কয়েক হাজার যাত্রী দীর্ঘকাল ধরে অচেতন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন কারণ রাস্তাটি জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, আনন্দপুর হয়ে দুই কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটি অজানা কারণে দু’বছর ধরে অবহেলিত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

কলমাকান্দা সদর, খারনই, পাঁচগাঁও এবং রঙ্গচটি ইউনিয়নের অন্তত ১০ টি গ্রামের মানুষের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক, বহু গ্রামবাসী জানিয়েছেন।

স্থানীয় সাংবাদিক কাজল তালুকদার বলেছেন, রাস্তার বিভিন্ন অংশে বেশ কয়েকটি গর্ত গড়ে উঠেছে এবং এর ব্যবহারকারীদের অবিচ্ছিন্ন দুর্ভোগ সৃষ্টি করেছে।

তদুপরি দোয়ারাকোনা এলাকার একমাত্র ব্রিজের সাথে সংযোগ স্থাপনের রাস্তাটিও দুঃখজনক অবস্থায় রয়েছে বলেও তিনি জানান।

কলমাকান্দা সরকারী মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রবীর কুমার সরকার জানান, দুই বছর ধরে রাস্তাটি অবহেলিত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

স্থানীয় লোকজন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সময়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জরাজীর্ণ রাস্তাটি সংস্কারের জন্য আহ্বান জানিয়েছে তবে এখনও কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি, প্রধান শিক্ষক আরও জানান, অতিরিক্ত বোঝা ট্রাক চালুর কারণে গত এক বছরে রাস্তার অবস্থা আরও খারাপের দিকে গেছে এবং বালু বোঝাই ট্রলি।

উপজেলার চারটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি কলেজসহ কমপক্ষে আটটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শত শত শিক্ষার্থী তাদের প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য রাস্তাটি ব্যবহার করে।

তারা প্রধানত বর্ষাকালীন রাস্তাটি ব্যবহার করার সময় গুরুতর অসুবিধার মুখোমুখি হন, প্রধান শিক্ষক মো।

নেত্রকোনা জেলা পরিষদ সদস্য ইদ্রিস আলী তালুকদার, চাঁদপুর গ্রামের বাসিন্দা, বলেছেন শুধু কলমাকান্দার নয়, সংলগ্ন দুর্গাপুর উপজেলার লোকেরাও ময়মনসিংহের সুনামগঞ্জ ও হালুয়াঘাট উপজেলার দারামপাশা ও তাহিরপুর উপজেলা যেতে রাস্তাটি ব্যবহার করেন।

২০০৯ সালে স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এই সড়কটি তৈরি করে এবং এর পর থেকে আর কোনও বড় মেরামতের কাজ করা হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন কলমাকান্দা উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ইদ্রিস।

তিনি আরও বলেন, প্রবীণ ব্যক্তি ও জরুরি রোগীরা সবচেয়ে বেশি ভোগেন।

উদীচী শিল্পী গোস্তি কলমাকান্দা উপজেলা শাখার সেক্রেটারি আবুল কাশেম জানান, কালমাকান্দা উপজেলা সদর যাওয়ার মূল সড়কে মারাত্মক চাপ সৃষ্টি করে গুরুত্বপূর্ণ সংলগ্ন অনেক সংলগ্ন অঞ্চলের বাইপাস সড়ক হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

কাশেম বলেন, যাত্রীরাও প্রতি রবিবার ও বুধবার টুপি (সাপ্তাহিক বাজার) দিনে গুরুতর যানজটের মুখোমুখি হন।

যোগাযোগ করা হলে কলমাকান্দা উপজেলা এলজিইডি সহকারী প্রকৌশলী ইমরান হোসেন জানান, তারা জরুরি ভিত্তিতে সড়ক সম্প্রসারণ ও সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছে।

প্রস্তাবটি এখনও অনুমোদিত হয়নি বলেও জানান ইঞ্জিনিয়ার মো।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here