ব্রিজ ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় রফতানি, আমদানি ব্যাহত হয়

0
17


জুড়ী উপজেলার বটুলি কাস্টমস স্টেশন ও ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট এলাকায় একটি জীর্ণ বেইলি ব্রিজ দীর্ঘদিন ধরে অকেজো, রফতানি ও আমদানি ব্যবসায়ের কার্যক্রমকে খারাপভাবে ব্যাহত করছে।

শুল্ক কর্তৃপক্ষের মতে, বর্তমানে, বাটুলি শুল্ক স্টেশনের মাধ্যমে প্লাস্টিকের সামগ্রী, পিভিসি দরজা এবং তুলা ভারতে রফতানি করা হয়। এছাড়াও ভারত থেকে বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরণের ফল আমদানি করা হয়।

সমস্ত সর্বশেষ খবরের জন্য, ডেইলি স্টারের গুগল নিউজ চ্যানেলটি অনুসরণ করুন follow

এই শুল্ক স্টেশন এবং অভিবাসন তদন্ত কেন্দ্রের কার্যক্রম 2001 সালে শুরু হয়েছিল। রঘনাছড়া নামে একটি পাহাড়ের উপরের সেতুটি শূন্য লাইনের 150 মিটারের মধ্যে ভারতীয় অংশে অবস্থিত। উভয় দেশের সম্মতিতে ২০০৮ সালে ভারত ছোট আকারে সেতুটি তৈরি করে। তবে সেতুর মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে মালবাহী যান চলাচলের কোনও অনুমোদন হয়নি।

এক পর্যায়ে, উভয় দেশের ফ্রেইট গাড়িগুলি সেতুর মাঝখানে পার্ক করা ছিল। এরপরে পণ্যগুলি বোঝাই করে একটি গাড়ি থেকে অন্য গাড়িতে নামানো হত। তবে পরে ভারী বৃষ্টির কারণে বেইলি ব্রিজের দুপাশের মাটি পাহাড়ের opালু থেকে সরিয়ে নিয়ে সেতুটিকে হুমকির মুখে ফেলেছে। তার পর থেকে, বাটুলি কাস্টমস স্টেশন এবং ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট অঞ্চলে রফতানি ও আমদানি ব্যবসায়ের কার্যক্রম খারাপভাবে ব্যাহত হয়।

প্রায় দুই বছর আগে, ভারত সে জায়গায় নতুন সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিল, তবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) যখন সেতুটি নির্মাণে আপত্তি জানায়, কাজ স্থগিত থেকে যায়।

যোগাযোগ করা হলে বিজিবি জানিয়েছে, পুরানো সেতুটি সংস্কারে তাদের কোনও আপত্তি নেই।

তবে উচ্চতর কর্তৃপক্ষের নির্দেশের ভিত্তিতে তারা বাটুলিতে নতুন সেতু নির্মাণে আপত্তি জানায় বলে জানিয়েছেন বিজিবি -২২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মো। শাহ আলম সিদ্দিকী।

বর্তমানে ব্রিজটি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় ব্যবসায়ের কার্যক্রমকে খারাপভাবে বাধাগ্রস্ত করছে, পণ্য লোড ও আনলোডের জন্য উভয় দেশের ফ্রেইট গাড়ি সেতুর উভয় পদ্ধতির রাস্তায় পার্ক করছে।

বিজিবি কর্মকর্তা আরও জানান, শুল্ক স্টেশন এলাকায় রাস্তাঘাটসহ কয়েকটি অবকাঠামোগত কাজ বাকি রয়েছে। এই কাজগুলি শেষ হয়ে গেলে প্রয়োজনীয় ব্রিজ তৈরিতে অগ্রগতি হতে পারে। আপাতত, ভারত যদি পুরানো সেতুটি সংস্কার করে তবে আমদানি-রফতানিতে কিছুটা সুবিধা হবে।

মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান বলেছেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগের পরে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here