‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কয়ার’ পর্যটনকে নতুন মাত্রায় সূচনা করবে

0
13



পঞ্চগড় জেলায় পর্যটনকে বিকশিত করার লক্ষ্যে তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধায় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কয়ার’ নির্মাণ করা হচ্ছে।

টুইন টাওয়ার বা লন্ডন ব্রিজের আকারে, এই দর্শনীয় স্থাপনার জিরো পয়েন্ট থেকে দক্ষিণ দিকে প্রায় সাতশো মিটার দূরে মহাসড়কের দুপাশে দুটি পাঁচতলা ভবন থাকবে। দুটি বিল্ডিং একটি ব্রিজ দ্বারা সংযুক্ত হবে যা রাস্তার 25 ফুট উপরে নির্মিত হবে।

পুরো ইনস্টলেশনটি ইস্পাত কাঠামোর হবে বলে জানিয়েছেন পঞ্চগড় জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আবদুল আলীম খান ওউয়েরশি।

পঞ্চগড় জেলা পরিষদ কর্তৃক গৃহীত এই নান্দনিক কাঠামোটি দেশের উত্তরাঞ্চলে আগত পর্যটকদের সুবিধার্থে নির্মিত হচ্ছে। প্রকল্পটির ব্যয় হবে প্রায় ৩.60০ কোটি টাকা এবং নির্মাণ কাজ প্রায় দুই সপ্তাহ আগে শুরু হয়েছিল, যা অল্প সময়ের মধ্যেই দৃশ্যমান হবে।

প্রতিবছর কয়েক হাজার পর্যটক বাংলাবান্ধা, তেঁতুলিয়া এবং পঞ্চগড়ে যান তবে এই অঞ্চলে পর্যটকদের জন্য উপযুক্ত অবকাঠামোগত সুবিধার অভাব রয়েছে।

বিকাশমান পর্যটন খাতের সীমাবদ্ধতা বিবেচনা করে জেলা পরিষদ দেশের সর্বশেষ উত্তরের সীমান্ত, বাংলাবান্ধা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কয়ার নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের নিকটে মহাসড়কের উভয় পাশে ইস্পাত কাঠামোযুক্ত দুটি পাঁচতলা ভবন নিয়ে নির্মিত বর্গাকারটি নির্মিত হচ্ছে। প্রতিটি বিল্ডিং 30 ফুট দীর্ঘ এবং 30 ফুট প্রস্থে থাকবে। প্রথম ভবনের নিচতলায় historicalতিহাসিক যাদুঘর থাকবে। সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি সহ ভারত ও বাংলাদেশের উভয় সরকারের মধ্যে সম্পাদিত সমস্ত .তিহাসিক চুক্তির ফটোগ্রাফি গ্যালারী থাকবে। বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হবে। প্রথম থেকে তৃতীয় তল পর্যন্ত আবাসিক সুবিধা থাকবে এবং পঞ্চম তলায় একটি ওয়াচ টাওয়ার এবং একটি কফি কর্নার স্থাপন করা হবে।

একটি পর্যটক পুলিশ এবং সুরক্ষা ইউনিট দ্বিতীয় ভবনের নিচতলায় থাকবে। প্রথম থেকে চতুর্থ তল পর্যন্ত আবাসিক সুবিধাও থাকবে। পঞ্চম তলায় ওয়াচ টাওয়ার এবং একটি খাবারের কোণা থাকবে।

দুটি বিল্ডিংয়ের সাথে সংযোগ স্থাপনকারী 100 ফুট দীর্ঘ এবং 20 ফুট প্রশস্ত ব্রিজটির 5 ফুট প্রশস্ত পথ হবে। যেখানে দেশের বিভিন্ন traditionalতিহ্যবাহী পণ্য বিক্রির জন্য প্রদর্শিত হবে তার দু’দিকে স্টল স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে।

সরকার অনুমোদন দিলে স্থলবন্দর দিয়ে দেশগুলির বাণিজ্য পরিচালিত হওয়ায় ভারত, নেপাল এবং ভুটান থেকে স্টলগুলি সেখানে স্থাপন করা হবে।

পঞ্চগড় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার সাদাত সম্রাট বলেন, বাংলাবান্ধায় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কয়ার’ নির্মাণ পর্যটন শিল্পে নতুন দিগন্তের সূচনা করবে। ভাল পরিবেশে পর্যটকদের থাকার এবং খাবার গ্রহণের সুযোগ থাকবে।

“প্রতি বছর কয়েক হাজার পর্যটক পঞ্চগড়ে আসেন। বিশেষত তারা বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট দেখতে আসে। তবে ভাল পরিবেশে থাকার এবং খাওয়ার কোনও সুযোগ নেই। পর্যটন বাড়াতে আমরা জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে স্কয়ারটি তৈরির উদ্যোগ নিয়েছি পঞ্চগড়ের শিল্প। “

“আশা করি, নির্মাণকাজ শেষ হলে এটি জেলার পর্যটন শিল্পে একটি নতুন মাত্রা যুক্ত করবে,” তিনি বলেছিলেন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here