ধনিয়া পাতার ন্যায্য দাম নিয়ে কৃষকরা সবাই হাসি

0
10



ধনিয়া চাষ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থোপার্জন হওয়ায় জেলার কৃষকরা সকলেই হাসছেন।

গত বছরের দামের তুলনায় এই বছর ধনিয়া পাতাগুলি ন্যায্য দাম পাচ্ছেন চাষিরা, প্রতি কেজি ধনিয়া পাতা ৮ থেকে ১০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল, যা স্থানীয় বাজারে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এই বছর.

আদিতমারী উপজেলার সাপটিবাড়ী ইউনিয়নের জামুতারী গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন জানান, ইতিমধ্যে এক বিঘা জমিতে ধনিয়া পাতা বিক্রি করে তিনি ২০ হাজার টাকা আয় করেছেন। তিনি ধনিয়া পাতা আরও তিন থেকে তিন হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারেন।

“এ বছর বন্যা এবং ভারী বৃষ্টির কারণে ধনিয়া ক্ষেতটি দু’বার ধ্বংস হয়ে গেছে। তৃতীয়বারের মতো বীজ বপন করে আমি ফলন পেয়েছি।”

আফজালের স্ত্রী জামিলা বেগম জানান, ফলন পেতে তাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছিল। তারা চাষের জন্য তিন হাজার টাকা ব্যয় করেছে।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার মোগোলহাট গ্রামের আরেক কৃষক দীনেশচন্দ্র বর্মণ বলেন, ধনিয়া পাতা বিক্রি করে কৃষকরা প্রচুর পরিমাণে অর্থোপার্জন করছেন, তবে ধনিয়া ক্ষেত বেশ কয়েকবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

“এ বছর বন্যা এবং ভারী বৃষ্টির কারণে সব ধরণের সবজি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। গত বছরের তুলনায় সবজি উত্পাদন ব্যয় দ্বিগুণ হয়েছে,” তিনি বলেছিলেন।

সদর উপজেলার ভাটিবাড়ী গ্রামের কৃষক নাজির আলী জানান, তিনি 60০ দশমিক এক জমিতে ধনিয়া পাতা চাষ করতেন তবে তিনি ২০ দশমিক 20০ শতাংশ জমিতে ফলন পেয়েছিলেন। ভারী বৃষ্টির কারণে ৪০ দশমিক land০ শতাংশ জমিতে ধনিয়া পাতা পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

তবে ধনিয়া পাতার বাজারমূল্য বেশি হওয়ায় তারা চাষাবাদ থেকে ভাল পরিমাণ অর্থোপার্জন করছে বলে তিনি জানান।

লালমনিরহাট শহরের সাহেবপাড়া এলাকার বাসিন্দা হামিদুল ইসলাম জানান, দাম বেশি হওয়ায় তারা এখন তেমন ধনিয়া পাতা কিনছেন না।

লালমনিরহাট শহরের গোশালা বাজারের সবজি বিক্রেতা মেহের আলী জানান, তারা কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে ধনিয়া পাতা কিনে বেশি দামে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছেন।

ধনিয়া পাতার দাম বেশি হলেও এর চাহিদা কমেনি বলেও জানান তিনি।

লালমনিরহাটের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের (ডিডিই) উপ-পরিচালক (ডিডি) শামীম আশরাফ বলেছেন, এ বছর ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যার কারণে জেলার প্রায় ১,৮০০ বিঘা জমিতে ধনিয়া পাতা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

গ্রাহকরা বেশি চাহিদা থাকায় ধনিয়া পাতা বিক্রি করে সন্তোষজনক অর্থ উপার্জন করছেন বলে জানিয়েছেন ডিডি।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here