কৃষকরা canalক্যবদ্ধভাবে খালকে প্রাণ ফিরিয়ে আনতে

0
10



কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য প্রায় দুই দশক অপেক্ষা করার পরে, বাউফল উপজেলার কৃষকরা অবশেষে তাদের নিজস্বভাবে একটি দুই কিলোমিটার দীর্ঘ সুপ্ত খালটি পুনরুদ্ধার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাউফল ও নওমালা ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে চলমান জৌতা-নওমালা-বগা খাল পুনরুদ্ধারের ফলে স্থানীয় কৃষকরা সারা বছর প্রায় ৫০০ একর জমিতে শস্য জন্মানোর উপকার পাবেন।

১৮ ই ফেব্রুয়ারি ওই অঞ্চলে একটি পরিদর্শনকালে কয়েক শতাধিক স্বেচ্ছাসেবীর কাজ করতে দেখা গেছে। আলেয়া রহমান লেডিজ ক্লাব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের প্রায় 50৫০ মিটার খালটি ইতিমধ্যে পুনরায় খনন করা অবস্থায় পাওয়া গেছে।

বাটকাজাল গ্রামের কৃষক ফারুক শিকদার জানান, জৌতা, বাটকাজাল ও নওমালা অঞ্চলের কয়েকশ কৃষক এই অঞ্চলের প্রায় ৫০০ একর জমিতে ফসল মূলত আমন ও আইআরআই ধানের সেচ দেওয়ার জন্য খালের পানির উপর নির্ভরশীল।

তবে বছরের বেশিরভাগ অংশে তারা বেশিরভাগ ফসল জন্মাতে পারেনি এবং পলি খালের পানির নিম্ন প্রবাহের কারণে ধানের উৎপাদনও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। এখন স্বেচ্ছাসেবকরা খালটি পুনঃখননের ফলে এই অঞ্চলে কৃষিক্ষেত্র পুনরুজ্জীবিত হবে।

জৌতা গ্রামের অপর কৃষক আবদুর রউফ খলিফা বলেন, ধানসহ কৃষির জন্য পানি জরুরী। কিন্তু খালে পানির অল্প পরিমাণে সরবরাহের কারণে ইতিমধ্যে ধানের চারা হলুদ হয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরও যোগ করেন, “আমরা খালটি খনন করতে শুরু করেছি কারণ আমরা যদি তাত্ক্ষণিক পর্যাপ্ত পরিমাণে জল ফসল না দিতে পারি তবে এবার আইআরআরআইয়ের ফলন ক্ষতিগ্রস্থ হবে।”

একই গ্রামের শাহ আলম চৌকিদার বলেন, খালটি ধীরে ধীরে শুকিয়ে গেছে, মাইশাদি খালটি একটি উত্সাহী গেট দিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল এবং জমে থাকা পলিটি অপসারণ না করা অবস্থায় প্রায় দুই দশক ধরে এই পলিটি জমে থাকত। ।

নওমালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাদা হাওলাদার বলেছেন, জৌতা, বাটকজাল ও নওমালার কৃষিবাসীদের জীবিকা খাল থেকে পানির উপর নির্ভর করে।

খালে পানি প্রবাহ বন্ধ হওয়ায় কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, স্লুইস গেটের উজানটি উন্মুক্ত করা গেলে এলাকার কৃষকরা তাদের দুর্দশা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন বলেছিলেন, “আমি ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের কাছ থেকে পরিস্থিতি শুনেছি। এলাকার সুপ্ত খালগুলি পুনরায় খনন করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে যাতে কৃষকরা সারা বছর ধরে ফসলের জন্য নিরবচ্ছিন্নভাবে সেচের পানির সরবরাহ পান। “

তিনি খালের উত্সে স্লুইস গেট উন্মুক্ত রাখতে পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছিলেন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here