কুয়াকাটা সৈকত: শব্দদূষণ অসহনীয়

0
16



পটুয়াকালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে শব্দদূষণ (শব্দদূষণ হিসাবেও অভিহিত) তীব্র হয়ে উঠেছে কারণ ইঞ্জিনচালিত নৌকাগুলির মালিকদের দ্বারা ব্যবহৃত লাউডস্পিকার পর্যটকদের শ্রবণশক্তিকে প্রভাবিত করছে।

মালিকরা মূলত বিভিন্ন নৌকায় ভ্রমণ করার জন্য লাউডস্পিকারের মাধ্যমে পর্যটকদের আমন্ত্রণ জানান বিভিন্ন পর্যটন স্পটগুলিতে, স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে সাম্প্রতিক সফরকালে দেখা গিয়েছিল, সৈকতের জিরো পয়েন্টের পশ্চিম পাশে বাঁশের সাথে বাঁধা লাউডস্পিকার ব্যবহার করে যাত্রীদের ডাকা হচ্ছে।

কমপক্ষে আটটি নৌকার কর্মীরা লাউডস্পিকারের মাধ্যমে যাত্রীদের উচ্চতর গাড়িতে যাত্রার জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন।

পরিস্থিতি দেখে বিরক্ত পর্যটকরা।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত থেকে পর্যটক নৌকাগুলি বরগুনার তালতলী উপজেলার ফাদারার বন, পাথরঘাটা উপজেলার হরিণঘাট বন, লালদীয়ার চর এবং বাগেরহাটের সুন্দরবনের কটকা সহ কয়েকটি দর্শনীয় পর্যটন স্পট ঘুরে দেখছেন।

সৈকতে আটটি পর্যটন নৌকার মালিকরা স্পটগুলি দেখার জন্য পর্যটকদের আমন্ত্রণ জানাতে লাউডস্পিকার ব্যবহার করছেন। এর মধ্যে সানরাইজ ইকো ট্যুরিজম, কুয়াকাটা ট্যুরিজম, স্বাধীন পর্যটন, সি স্টার ট্যুরিজম, খলিফা ট্যুরিজম, সি ট্যুরিজম, হোসেন ট্যুরিজম উল্লেখযোগ্য।

নরসিংদীর এক পর্যটক একরামিন শিকদার জানান, সৈকতে শব্দের তীব্রতার কারণে পর্যটকরা অনেকগুলি স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখোমুখি হন – বধিরতা থেকে শুরু করে হার্ট অ্যাটাক পর্যন্ত। তারা পর্যটন স্পটের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখতে আসে তবে এই শব্দদূষণের কারণে তারা সত্যিই বিরক্ত হয়।

এটা বন্ধ করা উচিত।

কুষ্টিয়া থেকে আগত পর্যটক মোহামিনুল ইসলাম জানান, মূলত এখানে পর্যটকরা সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের অপরূপ দৃশ্য সহ কিছু মনোরম স্পট দেখতে আসেন to এই ধরণের শব্দদূষণটি সত্যই সবার জন্য অস্বস্তিকর।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক, কুয়াকাটা সৈকত পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব জানান, তিনি বিষয়টি অবহিত নন।

শব্দদূষণ বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে ইউএনও জানিয়েছে।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here