আ.লীগ প্রার্থীরা স্থানীয় সংস্থা জরিপে প্রভাব বিস্তার করেছেন

0
34



আনুষ্ঠানিক ফলাফল থেকে দেখা যায়, মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের (আ.লীগ) প্রার্থীরা নির্বাচন এবং উপনির্বাচনে আধিপত্য বিস্তার করছেন।

এসব নির্বাচনেও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

সকাল ৮ টা ৪০ মিনিটে ভোটগ্রহণ শুরু করে এবং কোনও বিরতি ছাড়াই বিকেল ৫ টা পর্যন্ত অব্যাহত রেখে 200 জনেরও বেশি স্থানীয় সংস্থা নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল।

এই স্থানীয় সংস্থার বেশিরভাগ থেকে অনানুষ্ঠানিক ফলাফল আসতে শুরু করেছে।

কুমিল্লায় আ.লীগের নুরজাহান ইসলাম ২66,১৫৮ ভোট পেয়েছেন এবং তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী পেয়েছেন ১২,১৫৪ ভোট।

বরুড়া উপজেলায় বিএনপির প্রার্থীরা অনিয়মের অভিযোগ তুলে ভোট বর্জন করেছেন। দুটি ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং অফিসার মোঃ আলমগীর হোসেন।

তিনি বলেন, আ.লীগের মিসবাহুর রহমানকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

বাগেরহাটের সরানখোলা উপজেলায় আ’লীগের রায়হান উদ্দিন ৫ 56,১৮৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বলে রিটার্নিং কর্মকর্তা বেনজির আহমেদ জানিয়েছেন।

নওগাঁর মান্দা উপজেলায় আ.লীগ প্রার্থী মোল্লা এন্তাদুল হক ৮০,১ .6 ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

এদিকে, লালমনিরহাটের পাটিকাপাড়া ও গড্ডিমারী ইউনিয়নেও আ.লীগের প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন এবং দলগ্রাম ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গায় সদর উপজেলার গড়াইতুপী ইউনিয়ন ও আলমডাঙ্গা উপজেলার ডাউকি ইউনিয়নে আ.লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

স্থানীয় সংস্থাগুলির মধ্যে একটি জেলা পরিষদ (কুমিল্লার দাউদকান্দি) এবং বিভিন্ন জেলায় 15 টি ইউনিয়ন পরিষদের নিয়মিত নির্বাচন করণোভাইরাস মহামারীর মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

এছাড়াও সাতটি জেলা, আটটি উপজেলা ও ১ 177 টি ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

৪১ টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here